۸ خرداد ۱۴۰۱ |۲۷ شوال ۱۴۴۳ | May 29, 2022
মাওলানা মাসুম আলী গাজী নাজাফী
মাওলানা মাসুম আলী গাজী নাজাফী

হাওজা / ঊনবিংশ অমীয় বাণী। গ্রন্থ শিরোনাম : চল্লিশটি অমীয় বাণী। (সমস্যা সমাধানের জন্য বারোটি দোয়া সহ) সংকলন : আল্লামা শেখ আব্বাস কুম্মী (রহঃ)। বিষয় : ইমাম জাফর সাদিক্ব (আঃ) এক ব্যক্তিকে তার অন্তরের খবর দেন।

মাওলানা মাসুম আলী গাজী নাজাফী

শেখ কুলাইনী (রহঃ) বর্ণনা করেন,

اِسْمَاعِیْلُ ابْنُ عَبْدِ اللّٰهِ الْقَرْشِیْ قَالَ اَتٰی اَبِیْ عَبْدِ اللّٰهِ عَلَیْهِ السَّلامُ رَجُلٌ فَقَالَ لَه یَا بْنَ رَسُوْلَ اللّٰهِ رَأَیْتُ فِیْ مَنَامِیْ کَاَنّٰی خَارِجٌ مِنْ مَدِیْنَةِ اَلْکُوْفَةِ فِیْ مَوْضِعٌ اَعْرِفُه وَکَانَ شِبْحًا مِنْ خَشَبٍ اَوْ رَجُلاً مَنْحُوْتًا مِنْ خَشَبٍ عَلٰی فَرَسٍ مِنْ خَشَبٍ یَلَوِّحُ بِسَیْفَه وَانَا شَاهِدُه فَزِعًا مَرْعُوْبًا فَقَالَ لَه عَلَیْهِ السَّلامُ اَنْتَ رَجُلٌ تُرِیْدُ اِغْتِیَالَ رَجُلٍ فِیْ مَعِیْشَتِه فَاتَّقِ اللّٰهَ الَّذِیْ خَلَقَكَ ثُمَّ یُمِیْتُكَ فَقَالَ الرَّجُلُ اَشْهَدُ أَنَّكَ قَدْ اُوْتِیْتَ عِلْمًا وَ اسْتَنْبِطَتْهُ مِنْ مَعْدَنِه اُخِبْرُكَ یَا بْنَ رَسُوْلَ اللّٰهِ عَمَّا قَدْ فَسَّرْتَ لِیْ اَنَّ رَجُلاً مِنْ جِیْرَانِیْ جَائَنِیْ وَ عَرَضَ عَلَیَّ ضَعَتَه فَهَمَمْتُ اَنَّ اَمْلِکَهَا بِوِکْسٍ کَثِیْرٍ لَمَّا عَرَفْتُ لَیْسَ لَهَا طَالِبٌ غَیْرِیْ فَقَالَ اَبُوْ عَبْدِاللّٰهِ عَلَیْهِ السَّلامُ وَ صَاحِبُكَ رَجُلٌ یَتَوَلَّنَا وَ یَبْرَءُ مِنْ عَدُوِّنَا؟ فَقَالَ نَعَمْ یَابْنَ رَسُوْلُ اللّٰهِ رَجُلٌ جَیِّدُ الْبَصِیْرَةِ مُسْتَحْکَمُ الدِّیْنِ وَ اَنَا تَائِبٌ اِلَی اللّٰهِ عَزَّ وَ جَلَّ وَ اِلَیْكَ مِمَّا هَمَمْتُ بِه وَ نَوَیْتُه فَاَخْبِرْنِیْ یَا بْنَ رَسُوْلِ اللّٰهِ لَوْ کَانَ نَاصِبًا حَلَّ لِیْ اِغْتِیَالُه؟ فَقَالَ اَدِّ الْاَمَانَةَ لِمَنْ اِئْتَمَنَكَ وَ اَرَادَ مِنْكَ النَّصِحَةَ وَ لَوْ اِلٰی قَاتِلِ الْحُسَیْنِ عَلَیْهِ السَّلامُ

" ইসমাইল ইবনে আব্দুল্লাহ থেকে বর্ণিত, এক ব্যক্তি ইমাম জাফর (আঃ)-এর খেদমতে উপস্থিত হয়ে বলল : হে রসূল আল্লাহ (সাঃ)-এর সন্তান! আমি সপ্ন দেখেছি যে, আমি কুফা নগর থেকে বার হয়ে এক স্থানে এসেছি। সেখানে কাঠের তৈরি এক ছায়া বা অশ্বারোহী এক ছায়ামূর্তি কে দেখলাম সে নিজের তরবারি ঘোরাচ্ছে। তাকে দেখে আমার হৃদয়ে ভয় উৎপন্ন হয় এবং সাথে সাথে আমি আতঙ্কিত হয়েও পড়ি।

তিনি (আঃ ) বললেন : তুমি এক ব্যক্তিকে আর্থিকভাবে ধ্বংস করতে এবং সেই সাথে তার থেকে তার জীবিকাও কেড়ে নিতে চেয়েছিলে। তুমি ওই আল্লাহকে ভয় কর, যিঁনি তোমাকে সৃষ্টি করেছেন এবং তোমাকে মৃত্যুও প্রদান করবেন।

লোকটি বলল, আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, আপনাকে শিক্ষার ভান্ডার প্রদান করা হয়েছে এবং আপনি শিক্ষাকে তার খনি থেকে বার করেছেন।

হে রসূল আল্লাহ (সাঃ)-এর সন্তান! যে বিষয়ে আপনি আমাকে খবর দিয়েছেন তা হল, আমার প্রতিবেশী আমার কাছে এসে তার সমস্ত সম্পত্তি বিক্রি করার ইচ্ছা প্রকাশ করে, আমি কম দামে এসব সম্পত্তির মালিক হতে চেয়েছিলাম। কারণ আমি জানি যে, আমি ছাড়া আর কোন ক্রেতা নেই।

তিনি (আঃ) বলেন : ঐ ব্যক্তি কি আমাদেরকে ভালোবাসে এবং আমাদের শত্রুদেরকে ঘৃণা করে?

আমি বললাম : হ্যাঁ, হে নবীর সন্তান, তার অন্তর্দৃষ্টি খুবই ভাল এবং দ্বীনি বিষয়ে সে অন্তত দৃঢ়। আমি মহান আল্লাহ তাআলা ও আপনার কাছে ওই কু নিয়েতের কারণে তওবা করছি। অতঃপর লোকটি বলল, হে নবীর সন্তান! ওই লোকটি যদি আপনাদের শত্রু হতো তবে তার সাথে প্রতারণা করা কি জায়েয হতো? তিনি (আঃ) বলেন : যে তোমাকে আমিন জানে এবং তোমার কাছে নসিহত প্রত্যাশি তার আমানত পরিশোধ কর, সে ইমাম হোসায়েন (আঃ)-এর হত্যাকারী হলেও।

রওযাতুল কাফী খন্ড ৮ পৃষ্ঠা ২৯৩...

আল্লাহুম্মা সাল্লি আলা মুহাম্মদ ওয়া আ'লে মুহাম্মদ ওয়া আজ্জিল ফারাজাহুম ওয়াহ শুরনা মাআহুম ওয়াল আন আদুওয়াহুম।

تبصرہ ارسال

You are replying to: .
6 + 11 =