۸ خرداد ۱۴۰۳ |۲۰ ذیقعدهٔ ۱۴۴۵ | May 28, 2024
azaa

হাওজা / তাহরির পোস্ট, আঞ্জুমানে মুহিব্বানে আলে ইয়াসিন (আ:) এবং অন্যান্য অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে কুম শহরে মাদ্রাসা ইমাম খোমেনির শহীদ আরিফ হোসাইনি হলে জান্নাতুল-বাকী ধ্বংস দিবস উপলক্ষে একটি সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। যেখানে বিভিন্ন বক্তা আলে সৌদের নৃশংসতার বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার এবং জান্নাতুল-বাকী নির্মাণের দাবি জানান।

হাওজা নিউজ এজেন্সি রিপোর্ট অনুযায়ী, আঞ্জুমানে মুহিব্বানে আলে ইয়াসিন (আ:) কর্তৃক আয়োজিত কনফারেন্সে, শহীদ আরিফ হুসাইনি হলে জান্নাতুল-বাকী ধ্বংস দিবস উপলক্ষে সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় যেখানে বিভিন্ন বক্তা আল সৌদের নৃশংসতার বিরুদ্ধে তাদের আওয়াজ তুলেছেন এবং জান্নাতুল-বাকী নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন, পাশাপাশি গত ১০১ বছরের উত্থান-পতনের কথা উল্লেখ করেছেন।

উক্ত অনুষ্ঠানে মাওলানা সৈয়দ আমীর আব্বাস আবিদি নোগানভী এবং মাওলানা আজহার বাকির খান জৌনপুরীর মতো কবিরা হজরত ফাতিমা জাহরা (সা:) সম্পর্কে কবিতা উপস্থাপন করেন।

পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করেন জনাব আশিক হোসেন মীর।

পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করেন জনাব আশিক হোসেন মীর

জনাব আশিক হুসাইন মীর পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করে সম্মেলন শুরু করেন, এরপর ইসলামী বিপ্লবী সর্বোচ্চ নেতা ও মহান আয়াতুল্লাহ শেখ সাফি গুলপাইগানির বক্তব্যের একটি ক্লিপ পরিবেশন করা হয়।

হুজ্জাতুল ইসলাম ওয়াল-মুসলিমীন সৈয়দ মাহবুব মাহদি আবদি নাজাফী

এরপর আল-বাকী সংস্থার প্রধান হুজ্জাতুল ইসলাম ওয়াল-মুসলিমীন সৈয়দ মাহবুব মাহদি আবদি নাজাফী

ভিডিওর মাধ্যমে শ্রোতাদের উদ্দেশ্যে বার্তা জারি করে বলেন: আমাদের সংস্থা বাকী সম্পর্কে জাতিসংঘের কাছে আওয়াজ তুলেছে, জাতিসংঘের ওয়েবসাইটে বাকী নির্মাণের বিষয়ে আমাদের দাবি রয়েছে।

তিনি সারা বিশ্বে জান্নাতুল-বাকী নির্মাণের ব্যাপারে বিশ্বব্যাপী প্রচারণা চালানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেন এবং বলেন: জান্নাতুল বাকীকে কেন্দ্র করে সভা-সমাবেশ, বিক্ষোভ, সম্মেলন ও বিভিন্ন আন্দোলন পরিচালনা করা এবং আহলে বাইত (আ:)-এর অত্যাচারের কথা বিশ্ববাসীকে জানানো মুমিনদের জন্য আবশ্যক। এবং বাকীর কীর্তিগুলো বিশ্বের সামনে তুলে ধরতে এবং এই পবিত্র ব্যক্তিদের পরিচয় করিয়ে দিতে এ ধরনের সম্মেলন করতে হবে যাতে বাকীর বাণী সবার কাছে পৌঁছে দেওয়া যায়।

সৈয়দ আব্বাস মাহদী হাসানী বক্তব্য রাখছেন।

হুজ্জাতুল ইসলাম ওয়াল মুসলিমীন সৈয়দ আব্বাস মাহদী হাসানী বক্তব্য রাখছেন

ডক্টর সৈয়দ আব্বাস মাহদি হাসানী বক্তৃতাকালে বলেন: আলে-সৌদ ইসলামের শত্রু, শুধু ইসলাম নয়, মুসলমানদের ও ইসলামী স্মৃতিসৌধেরও শত্রু, কারণ তারা প্রথম কেবলা রক্ষা করার পরিবর্তে ইহুদিদের সাহায্য করছে।

তিনি আরও বলেন: ওহাবীরা মহানবী (সা:)-এর জন্মস্থানকে লাইব্রেরিতে পরিণত করেছে। এই কারণেই একশত এক বছর আগে জান্নাতুল-বাকীতে ইমামদের কবর ধ্বংস করা হয়েছিল। আলে সৌদের মধ্যে না ইসলাম আছে, না তাকওয়া আছে, আর না ঈমান, এরা আল্লাহর স্মৃতিসৌধের শত্রু, আলে সৌদ এতটাই ভ্রান্তিতে ডুবে গেছে যে তারা সত্যের পরিবর্তে মিথ্যাকে সমর্থন করছে।

বক্তব্য রাখছেন আয়াতুল্লাহ শেখ বাকির মুকাদ্দাসি।

বক্তব্য রাখছেন আয়াতুল্লাহ শেখ বাকির মুকাদ্দাসি

এই সম্মেলনের দ্বিতীয় বক্তা, আয়াতুল্লাহ শেখ বাকির আল-মুকাদ্দাসি জান্নাতুল-বাকীর গুরুত্ব, ইহুদি ধর্ম ও ওয়াহাবিজমের মধ্যে মিল এবং জান্নাতুল-বাকীর ইতিহাস উল্লেখ করতে গিয়ে বলেন: আল্লাহর রসূল (সা:) তাঁর জীবদ্দশায় মুসলমানদের জন্য কবরস্থান হিসেবে জান্নাতুল-বাকী প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।

ডক্টর নাসির রাফিয়ী বক্তব্যে বলেন:

হুজ্জাতুল ইসলাম ওয়াল মুসলিমীন ডক্টর নাসির রাফিয়ী বক্তব্যে বলেন:

হজ্জত আল-ইসলাম ওয়াল-মুসলিমীন ডক্টর নাসির রাফিয়ী, ইরানের বিখ্যাত ধর্ম প্রচারক বলেছেন: একশ বছর আগে, যখন আলে সৌদ জান্নাতুল-বাকী ধ্বংস করেছিল, তখন পনেরজন মুফতি পবিত্র কবর ভেঙে ফেলার ফতোয়া জারি করেছিলেন।

সম্মেলনের আয়োজনে আনন্দ প্রকাশ করে তিনি বলেন, এই মহান উপলক্ষ্যে এ ধরনের সম্মেলন আয়োজন করায় আমি খুবই আনন্দিত। আমাদের উচিত এমন একটি সম্মেলন আয়োজন করে পরবর্তী প্রজন্মের কাছে এই বার্তা পৌঁছে দেওয়া যে, কারা জান্নাতুল বাকীতে মাসুম ইমামগণের (আ:) ও হজরত ফাতিমা জাহরা (সা:আ:)-এর কবর ধ্বংস করেছে।

হুজ্জাতুল ইসলাম ওয়াল মুসলিমীন সৈয়দ এহতেশাম আব্বাস জাইদী

হুজ্জাতুল ইসলাম ওয়াল মুসলিমীন সৈয়দ এহতেশাম আব্বাস জাইদী

উক্ত সম্মেলনের শেষ বক্তা হুজ্জাতুল ইসলাম ওয়াল মুসলিমীন সৈয়দ এহতেশাম আব্বাস জাইদী বলেন: অজ্ঞতা হল ইসলামী বিশ্বের সবচেয়ে বড় ব্যাধি, দায়েশ, তালেবান, বোকো হারাম প্রভৃতি সন্ত্রাসী উপাদানগুলি জাহেলিয়াত ও ওয়াহাবিজমের প্রজননকারী, তারা মুসলমানদের মধ্যে সন্ত্রাস বজায় রাখার চেষ্টা করছে কিন্তু ইসলামিক রিপাবলিক অফ ইরানের পর আমরা দেখছি বিন সালমান নিজেও ওয়াহাবিজমের পায়ে আঘাত করছেন, আমি জানি না এটা কি ধরনের ওয়াহাবিজম, যেখানে সব কিছু করা হচ্ছে যা ইসলাম বিরোধী।

হুজ্জাতুল ইসলাম ওয়াল মুসলিমীন সৈয়দ হায়দার আব্বাস জাইদী

হুজ্জাতুল ইসলাম ওয়াল মুসলিমীন সৈয়দ হায়দার আব্বাস জাইদী

হুজ্জাতুল-ইসলাম ওয়াল-মুসলিমীন সৈয়দ হায়দার আব্বাস জাইদি আলে সৌদের পাঁচটি বড় অপরাধ ও নৃশংসতার দিকে ইঙ্গিত করে বলেন:

আলে সৌদ ৫টি অপরাধ করেছে যা মুসলিম বিশ্ব কখনো ভুলতে পারবে না।

১. জান্নাত ধ্বংস ২. মহানবী (সা:)-এর জন্মস্থান ভেঙে ফেলা ৩. হজরত খাদিজা (সা:)-এর বাড়ি ভেঙে ফেলা ৪. হজরত আলী (আ:) যে বাড়িতে বড় হয়েছিলেন সেটি ভেঙে ফেলা, ৫. লাইব্রেরি ভেঙে ফেলা যাতে ৬০ হাজারেরও বেশি দুর্লভ বই ছিল।

জান্নাতুল-বাকী নির্মাণের জন্য দোয়ার মাধ্যমে সম্মেলন শেষ হয়।

উল্লেখ্য, তাহরির পোস্টের পৃষ্ঠপোষকতায় এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় যাতে ভারতের ছাত্ররা সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে, সহযোগী সংগঠনগুলোর মধ্যে আঞ্জুমানে মুহিব্বানে আলে ইয়াসিন (আ:), ইন্ডিয়ান ইসলামিক স্টুডেন্টস ইউনিয়ন, ইমাম আল হুসাইন (আ:) ট্রাস্ট, এর নাম উল্লেখযোগ্য।

تبصرہ ارسال

You are replying to: .